Sunday, 25 February 2024
Trending

বাংলা

টাটা আইপিএল ২০২৩  সম্প্রচার করে বিপুল সাড়া পেল ডিজনি স্টার রেটিং ২৯% বাড়ল

নিজস্ব প্রতিনিধি –

টাটা আইপিএল ২০২৩-এর অফিশিয়াল টেলিভিশন সম্প্রচারকারী ডিজনি স্টারে উদ্বোধনী ম্যাচ টিভিতে* ৮.৭ বিলিয়ন মিনিট ধরে দেখা হয়েছে। এটা গত বছরের তুলনায় ৪৭%* বেশি। প্রথম দিন ১৪০ মিলিয়ন* দর্শক সরাসরি সম্প্রচার দেখেন, যার মধ্যে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও ছিল। গুজরাট টাইটানস আর চেন্নাই সুপার কিংসের মধ্যে খেলা হওয়া প্রথম ম্যাচ দেখেন ১৩০ মিলিয়ন* দর্শক।

সংযোগ গুপ্ত, হেড – স্পোর্টস, ডিজনি স্টার বললেন “সারা দেশের ভক্তদের থেকে #IPLonStar যে বিপুল সাড়া পেয়েছে আমরা অভিভূত। দেখার সময়ের বিপুল বৃদ্ধি আমাদের ক্যাম্পেনের সাফল্য, স্টার স্পোর্টসের সম্প্রচারের গুণমান উন্নত করার উপরে নজর দেওয়া, নির্বিঘ্নে লাইভ ক্রিকেট দেখার পছন্দের মাধ্যম হিসাবে লিনিয়ার টেলিভিশনের প্রাধান্য, এবং সবচেয়ে বড় কথা, ক্রিকেটভক্তদের সঙ্গে আমাদের গভীর সম্পর্কের প্রমাণ। একইসঙ্গে এটা আরও একবার পৃথিবীর প্রধান ক্রিকেট টুর্নামেন্ট হিসাবে টাটা আইপিএলের জনপ্রিয়তা প্রমাণ করল। আমরা গল্প বলার ক্ষমতা, শ্রেণির সেরা কভারেজ এবং সর্বোচ্চ কাস্টমাইজেশনের মাধ্যমে ভক্তদের সেবা করার প্রচেষ্টার প্রতি দায়বদ্ধ।”

স্টার স্পোর্টস খেলার ভক্তকুল তৈরি করা এবং দর্শকদের যত্ন করার ক্ষেত্রে সামনের সারিতে থেকেছে। প্রয়োজন অনুযায়ী নটা ভাষায় অঞ্চল-নির্দিষ্ট ফিড তৈরি করা, যা প্রত্যেক অঞ্চলের সামাজিক-সাংস্কৃতিক খুঁটিনাটি বিষয় এবং খেলার বাস্তবতা অনুযায়ী চলে – এরকম ভক্তকেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি নেওয়ার ফলে একাধিক অঞ্চলে ক্রিকেট দেখা অনেক বেড়ে গেছে। প্রাক্তন ক্রিকেটার ও অভিজ্ঞ সম্প্রচারকারীদের নিয়ে তৈরি এক তারকাখচিত ‘স্টার কাস্ট’ সমস্ত ভাষায় টাটা আইপিএল ২০২৩ পরিবেশন করছে। তাঁদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন স্টার স্পোর্টসের আইপিএল সূত্রধার – রণবীর সিং ও কিংবদন্তি তেলুগু অভিনেতা নন্দমুরি বালকৃষ্ণ। এঁরা সম্প্রচারের সুপার ফ্যানদের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

স্টার স্পোর্টস তাদের সমস্ত উদ্যোগের কেন্দ্রে রাখছে ভক্তদের এবং তাঁদের যতদূর সম্ভব আপাদমস্তক ক্রিকেটে ডুবে থাকার অভিজ্ঞতা জোগাচ্ছে ‘ফ্যান বাস’-এর মত অন-গ্রাউন্ড অভিজ্ঞতা দিয়ে। এই বাসে ভক্তরা স্টার স্পোর্টসের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে যোগ দিয়ে স্টেডিয়ামে যাওয়ার পথে আদানপ্রদান চালাতে পারেন এবং খেলাটাকে নিয়ে আলোচনা করতে পারেন। সম্প্রচারকারীরা ‘ওয়াচিং টুগেদার’-এর আনন্দও একেবারে দরজায় দরজায় পৌঁছে দিচ্ছে, ফলে ‘হর সোসাইটি বনেগা স্টেডিয়াম’ উদ্যোগের মাধ্যমে যতদূর সম্ভব আপাদমস্তক ক্রিকেটে ডুবে থাকার অভিজ্ঞতা পাওয়া যাচ্ছে। এই উদ্যোগে স্টার স্পোর্টসের বিশেষজ্ঞরা সারা দেশে আয়োজিত বিভিন্ন স্ক্রিনিংয়ে যোগ দিচ্ছেন। সম্প্রচারকারী বৃহত্তম স্কুল ক্রিকেট কুইজেরও আয়োজন করেছে, যার নাম ‘দি ইনক্রেডিবল লিগ কুইজ’। এতে ২০,০০০-এর বেশি ছাত্রছাত্রী অংশগ্রহণ করছে। ‘আস্ক স্টার’-ও নতুন চেহারায় ফিরে আসছে, যেখানে ভক্তরা কমেন্টেটরদের প্রশ্ন করতে পারবেন। সেইসব প্রশ্ন যেগুলোর উত্তর তাঁরা বরাবর চেয়েছেন। সেই প্রশ্নগুলো সরাসরি সম্প্রচারে দেখানো হবে।

স্টার স্পোর্টসের ‘শোর অন, গেম অন’ ক্যাম্পেন টুর্নামেন্টের আগে উল্লেখযোগ্য উত্তেজনা ও সমর্থন আদায় করেছিল। ওই ক্যাম্পেন ভক্তদের সেই আবেগ, উত্তেজনা এবং একাত্মতাকে ধরে যা তাঁদের প্রিয় ক্রিকেটারদের মাঠে অবিশ্বাস্য সব মুহূর্ত তৈরি করতে প্রেরণা দেয়। এই ক্যাম্পেন ফিল্মগুলোতে বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, হার্দিক পান্ডিয়া, রবীন্দ্র জাদেজা ও কে এল রাহুলের মত সুপারস্টাররা ছিলেন এবং এই ক্যাম্পেন সোশাল মিডিয়ায় ঝড় তুলে দিয়েছিল। ভক্তরা উল্লসিত হয়েছিলেন এবং নিজেদের প্রিয় দলের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করেছিলেন।

স্টার স্পোর্টস এক বিশেষ ‘স্টারস অন স্টার’ শো-ও চালু করেছে, যেখানে দর্শকরা তাঁদের প্রিয় নায়কদের ব্যক্তিগত স্তরে জানার এক অনন্য সুযোগ পাচ্ছেন। যে সুপার ফ্যানরা আইপিএলকে বিশিষ্টতা দিয়েছেন তাঁদের উদযাপন করার প্রয়াসকে সম্প্রচারকারী আরও জোরদার করে চলেছে। এতে বিপুল সাড়া পাওয়া গেছে। শুক্রবার টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার আগেই ২০০ মিলিয়নের* বেশি দর্শক টাটা আইপিএল ২০২৩-এর পরিবেশ তৈরি করার অনুষ্ঠানগুলো দেখেছেন। এইসব অনুষ্ঠান এই টুর্নামেন্টকে সরাসরি সম্প্রচারের সীমার বাইরেও ছড়িয়ে দেওয়ার প্রতি স্টার স্পোর্টসের দায়বদ্ধতার প্রমাণ।

এই টুর্নামেন্টের কাছ থেকে অনেক রোমহর্ষক মুহূর্ত, ওঠাপড়া ইত্যাদির আশা থাকে। ফলে স্টার স্পোর্টস আশাবাদী যে ভক্তরা টেলিভিশনে যখন খেলা দেখবেন তখন ‘শোর’ চলবে। একগুচ্ছ এক্সক্লুসিভ সারাউন্ড প্রোগ্রামিং এবং প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের মাধ্যমে সম্প্রচারকারী এই মার্কুই টুর্নামেন্ট দেখার অভিজ্ঞতাই বদলে দিচ্ছে। টাটা আইপিএল ২০২৩ এক উপভোগ্য টুর্নামেন্ট হয়ে ওঠার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে এবং দেখার অভিজ্ঞতাকে উন্নততর করার জন্য স্টার স্পোর্টসের প্রয়াস সারা দেশের দর্শক ও ভক্তদের জন্য নিঃসন্দেহে একে স্মরণীয় করে তুলবে।