Sunday, 21 July 2024
Trending

বাংলা

যতীশ কুমারের বহুল প্রশংসিত বই ‘বর্ষী ভর আঁচ’ নিয়ে শিয়ালদহের বিসি রায় ইনস্টিটিউটে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়

নিজস্ব প্রতিনিধি –

শিয়ালদহের বিসি রায় ইনস্টিটিউটে যতীশ কুমারের বহুল প্রশংসিত বই ‘বর্ষী ভর আঁচ’ নিয়ে একটি আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সুপরিচিত হিন্দি কবি-লেখক দেবী প্রসাদ মিশ্র, অধ্যাপক হিতেন্দ্র প্যাটেল, অধ্যাপক বেদ রামন, অধ্যাপক সঞ্জয় জয়সওয়াল, রিতু তিওয়ারি এবং যোগাচার্য ভূপেন্দ্র শুকলেশ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। শ্রীমতী স্মিতা গোয়েল সকল বক্তাকে ‘শাল’ দিয়ে স্বাগত জানান এবং সম্মানিত করেন।

তার মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে অধ্যাপক সঞ্জয় জয়সওয়াল বলেন, ‘এই বইটি ব্যক্তিগত সত্য থেকে সামাজিকতার দিকে যাত্রা করে। এটি শুধু একটি গল্প নয়, এটি নতুন প্রজন্মকে শিক্ষিত করার একটি বই। এই বইটি শুধু তার ব্যক্তিগত পারিবারিক জীবনের কথাই বলে না বরং অতীতের সামাজিকতা ও সামাজিক-রাজনৈতিক পরিস্থিতির ইতিবাচক আখ্যান।
যোগাচার্য ভূপেন্দ্র শুকলেশ বলেন, ‘বইটি একটি আত্মজীবনীমূলক দলিল। এটি কোনো জনপ্রিয় বিভাগে স্থাপন করা উচিত নয়। একটি নতুন বিভাগ তৈরি করা উচিত। একটি বই একটি বাস্তব জীবনের দলিল। বর্ণনা তাই বাস্তব; ঠিক যেন জ্বলন্ত কাঠকয়লা। স্বচ্ছতা, সত্যবাদিতা, নম্রতা এই বইয়ের সারাংশ। আধ্যাত্মিক জীবনে, ভাল এবং খারাপ কোন মানদণ্ড অনুযায়ী ওজন করা হয় না। এই বইটিতে এমন অনেক কিছু রয়েছে যা আপনি বিনামূল্যে জীবনযাপন করতে পারবেন। আমি আপনাকে এই বইটি দেখার জন্য অনুরোধ করব, যদি আপনি জীবনে কিছু থেকে বঞ্চিত হতে না চান। ব্যাপকভাবে বলতে গেলে, এই বইটি পড়া আমাদের শেখায় কীভাবে জীবনযাপন করতে হয়।

শ্রীমতী রিতু তিওয়ারি ‘বরসি ভর আঁচ’কে টেলিস্কোপ হিসেবে বর্ণনা করে বলেন, লেখক তার অতীতে গিয়ে লিখেছেন। এই বইটির বিশেষ বিষয় হল লেখকের সততা। আমাদের জীবন এবং লেখার প্রতি সৎ হওয়া উচিত। সততা আমাদের সংবেদনশীল করে তোলে। এই বইটি পড়লে দেখবেন চিকুর ব্যক্তিত্ব রেলপথের মতো বিস্তৃত হয়েছে। চিকুর সংগ্রাম নানাভাবে মানবিক, আমরা তা থেকে অনুপ্রেরণা নিতে পারি। কিন্তু সেই সংগ্রামে আমরা মানুষ হিসেবে থাকতে পারব। ‘বরসি কি আঁচ’ হল জীবন সম্প্রসারণ ও দর্শনের অঙ্গীকারের শিখা। এই বইটি আমাদের ভাবতে বাধ্য করবে যে আমরাও আমাদের জীবন এবং আমাদের সমাজের প্রতি সমানভাবে সৎ হতে পারি, পরিস্থিতি যাই হোক না কেন।

অধ্যাপক ও সমালোচক বেদ রমন তাঁর মতামত পেশ করতে গিয়ে বলেছিলেন যে এটি যতীশ জির কবিতা থেকে গদ্যে, অতীত থেকে ভবিষ্যতের যাত্রা। এই বইয়ে যদি কারো জীবন সংগ্রাম থেকে থাকে, তা হলো মা। জীবনে যদি কারো সাহস থাকে, সে দিদি। কারো প্রাণের বুদ্ধি থাকলে তা বড় ভাইয়ের, কারো জীবনপ্রেম থাকলে তা স্মিতার; তাহলে এই বইতে চিকু কি আছে? আসলে, চিকু তার জীবনকে ধীরে ধীরে রান্না করেছিলেন যেভাবে একটি প্যানে (গর্সি) দুধ খুব ধীরে রান্না করা হয় এবং এই সবের ফলস্বরূপ, চিকু এই বইয়ের কেন্দ্রীয় চরিত্রে পরিণত হয়েছিল। একটি নক্ষত্রমণ্ডল তৈরি হয়েছিল, তারার মতো জ্বলজ্বল করছিল। আজকের সময়ে যখন সবাই তাদের স্মৃতি লিখতে ব্যস্ত, এই বইটি শেয়ার করা স্মৃতির কথা বলে। এই বই থেকে অ্যাফোরিজমের একটি সংগ্রহ তৈরি করা হলে একটি পৃথক পুস্তিকা বের করা যেতে পারে।
সাহিত্যে সাফল্যের জন্য যা প্রয়োজন তা হল একজনের দক্ষ আচরণ, পরিচালনার দক্ষতা এবং সম্পদের দক্ষতা থাকা উচিত। সর্বোপরি একজনের অবশ্যই দক্ষতা কার্যকর করার দক্ষতা থাকতে হবে। আজকের তরুণ প্রজন্মের একজন মানুষের স্বপ্ন ও সংগ্রামের গল্প এই বই